UEFA EURO 2020 FINAL: ট্রাইবেকারে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে ইউরো চ্যাম্পিয়ন ইতালি

নদীয়া নিউজ ২৪ ডিজিটাল: দীর্ঘ ৫৩ বছর পর ঘরের মাঠ ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে উয়েফা ইউরো কাপ ( UEFA EURO 2020 FINAL)চ্যাম্পিয়ন ইতালি। ঘরের মাঠ, প্রচুর সমর্থন, এর থেকে ভালো আর কি চাই? পুরো ৬৫ মিনিট পিছিয়ে থাকার পরেও দুরন্ত প্রত্যাবর্তন ঘটাল ইতালি। নির্ধারিত সময়ে ম্যাচের ফয়সালা না হওয়ায় অতিরিক্ত সময়ের খেলা হয়। সেখানেই আর কোনও গোল না হওয়ায় ম্য়াচ গড়ায় টাইব্রেকারে। যেখানে ৩-২ গোলে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে দ্বিতীয়বারের জন্য ইউরোপের সেরা দলের স্বীকৃতি ছিনিয়ে নিল ইতালি। হ্যারি কেনরা স্বপ্ন দেখেছিলেন ইতিহাস লেখার। কিন্তু জর্জিও কিয়েলিনির ইটালির কাছে তাঁদের স্বপ্ন ভেঙে চুরমার হয়ে গেল।

ইতালি ডিফেন্সিভ ফুটবল খেলে। সেসব এখন অতীত। ইতালি নিজেদের খোলনলচে বদলে ফেলেছে। আর এর পেছনে কোচ মানচিনি আসল গেম চেঞ্জার। ইতালির কোচ হিসেবে তিনি এক নতুন ধারার জন্ম দিয়েছেন। সেই ধারাতেই ইতালি এখন প্রবল আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলছে। গোটা ইউরো কাপে সেই আক্রমণাত্মক ফুটবলের পরম্পরা বজায় রাখল মানচিনির ইতালি। এমনকী ফাইনাল ম্যাচের শুরুতেই গোল হজম করার পরও একটানা ইংল্যান্ডের বক্সে আক্রমণ শানিয়ে গিয়েছে খিয়েসা, বোনুচ্চিরা।

ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের ইতিহাসে এই নিয়ে ১৯৭৬ সালের পর দ্বিতীয়বার ফাইনালের সিদ্ধান্ত হলো টাইব্রেকারে। আর সেখানেই লড়াইটা হয়ে যায় জর্ডন পিকফোর্ড বনাম জিয়ানলুইগি ডোনারুমার। বাজিমাত করে দেন ইটাসলির তরুণ গোলরক্ষক ডোনারুমা।

এই নিয়ে ইটালি দশমবার কোনও মেজর টুর্নামেন্টের ফাইনাল (ছ’বার বিশ্বকাপ এবং চারবার ইউরো) খেলতে নামছে। ইউরোপিয়ান দেশগুলোর মধ্যে একমাত্র জার্মানি (১৪) ইট্যালির থেকে বেশি ফাইনাল খেলেছে। ১৯৬৮ সালে ইটালি ইউরো কাপ জয় করেছিল। কিন্তু, ২০০০ এবং ২০১২ সালে তারা টুর্নামেন্টের ফাইনালে উঠেও শেষপর্যন্ত জিততে পারেনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.