ভাইয়ের বৌভাতের থেকে যাওয়া খাওয়ার স্টেশনবাসীদের খাইয়ে খবরের শিরোনামে কৃষ্ণগঞ্জের পাপিয়া কর

রানাঘাট,নদীয়া: যে কোনও অনুষ্ঠান বাড়িতেই বেশ কিছু পরিমাণ খাবার বেঁচে যায়, এ আর নতুন কী! অনেকেই তা বিলিয়ে দেন বন্ধু আত্মীয়দের মধ্যে। অনেক বাড়িতে খাবার নষ্টও হয়। কিন্তু খাবার নষ্ট হোক, এমনটা মন থেকে চান না কেউই। এখন অবশ্য অনেকেই বেঁচে যাওয়া খাবার তুলে দেন বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের হাতে। ঠিক এমনটাই করলেন রানাঘাটের পাপিয়া কর।

গত ৩ ডিসেম্বর নদীয়ার কৃষ্ণগঞ্জ এর বিশিষ্ট সমাজ সেবিকা পাপিয়া করের ভাইয়ের বিয়ের ছিল। তার একদিন পরেই ছিল বৌভাত। বৌভাতের দিন রানাঘাটের প্রায় ৬০ জন অসহায় মানুষ নিমন্ত্রিত থাকলেও এদের মধ্যে অনেকেই অনুপস্থিত ছিল সেদিন। হয়তো সেদিন কেউ নিজের পকেটের পয়সা ভাড়া দিয়ে বিয়ে বাড়িতে আসতে পারেনি। দেরি না করেই মধ্যরাত্রিতে বেনারসি শাড়ি পড়েই বিয়ের সাজে খাবার-দাবার নিয়ে রানাঘাট এগিয়ে নিজে হাতে হতদরিদ্র মানুষ গুলোকে খাইয়ে আসলেন। পাপিয়া দেবীর শেয়ার করা এই ছবিই নিমেষেই ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়।

ভিডিয়োটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ার পর স্থানীয়রা জানান, এটা প্রথমবার নয়। এর আগেও পাপিয়া বহুবার এমন ভাল কাজের উদ্যোগ নিয়েছেন। সুযোগ পেলেই তিনি মানুষের পাশে দাঁড়ান। রাস্তার ধারে ক্ষুধার্ত মানুষের মুখে প্রায়শই অর্থ তুলে দিতে দেখা যায় তাঁকে। পাপিয়াকে দেখে এমন আরও অনেক মানুষ এগিয়ে আসবেন, এমনটাও বলছেন অনেকে।

প্রত্যেক বছর দুর্গা পূজার আগে সমাজের বিভিন্ন ফেলে দেওয়া জিনিস দিয়ে দুর্গা প্রতিমা তৈরি করে তা বিক্রির পয়সা দিয়ে দুঃস্থ শিশুদের জামাকাপড় কিনে দেন। আর এদিন পাপিয়া দেবীর ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.