জ্যোতি বসুকে নিয়ে বাংলা ছবি!ইঙ্গিত দিলেন প্রখ্যাত চিত্রনাট্যকার এন কে সলিল

নদীয়া নিউজ ২৪ ডিজিটাল: এককথায় প্রখর রাজনীতিবিদ। এখনও পর্যন্ত তিনিই একমাত্র ব্যক্তি ,যিনি দীর্ঘ ২৩ বছর রাজত্ব করেছেন বাংলার মসনদে। তিনি আর কেউ নন,তিনি রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসু। এবার সেই জ্যোতি বসুকে নিয়ে বাংলায় সিনেমা করার ইঙ্গিত দিলেন প্রখ্যাত চিত্রনাট্যকার এন কে সলিল।

বলিউডে তৈরি হচ্ছে একের পর এক সেলিব্রিটির বায়োপিক। সেই তুলনায় টলিউডে সংখ্যাটা নিয়ান্তই কম। বলা যায়, বাংলা ছবির জগতে আক্ষরিক অর্থে বায়োপিকের সংখ‍্যা যথেষ্ট কম। সেখানে দাঁড়িয়েই রাজ‍্য রাজনীতির এক প্রখ‍্যাত রাজনৈতিক ব‍্যক্তিত্বের বায়োপিকের জন‍্য চিত্রনাট‍্য লেখার ইচ্ছা প্রকাশ করলেন মারকাটারি লেখক এন কে সলিল।

টানা ২৩ বছর ধরে বাংলার মুখ্যমন্ত্রীর আসনে ছিলেন জ্যোতি বসু। বামপন্থী রাজনীতির এক প্রবাদ প্রতিম ব‍্যক্তিত্ব ছিলেন তিনি। ১৯১৪ সালের ৮ জুলাই জন্মগ্রহণ করেন জ‍্যোতি বসু। প্রয়াত হন ২০১০ এর ১৭ জানুয়ারি। সারা জীবন রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত থাকা সত্ত্বেও সাহিত‍্য, সংষ্কৃতি নিয়েও উৎসাহী ছিলেন তিনি। তিনি নিজেও ছিলেন সিনেমা প্রেমিক।

নয়ের দশকের শেষের দিকে বাংলা সিনেমার জগতে নিজের সফর শুরু করেন এন কে সলিল। তাঁর হিট ছবির লিস্ট বিরাট লম্বা। তিনি ‘তুলকালাম’, ‘MLA ফাটাকেষ্ট’, ‘চ্যালেঞ্জ’, ‘পাগলু’-এর মতো সিনেমার চিত্রনাট্য লিখেছেন। বহু পরিচালকের সঙ্গে কাজ করেছেন তিনি। তাঁর সমসমায়িক পরিচালক থেকে অভিনেতা অনেকেই এখন রাজনীতিতে। কেউ এমপি, কেউ আবার এমএলএ। এন কে সলিলের কথায়, “আজকের দিনের রাজনীতিও কিন্তু অনেকটাই বামপন্থা ঘেঁষা। মুখ‍্যমন্ত্রী মমতা বন্দ‍্যোপাধ‍্যায় নিজে স্বীকার করেছেন যে তিনি বামপন্থী মনস্ক। তাই জ‍্যোতি বসুকে নিয়ে নতুন কিছু জানাতে চাই।”

দীর্ঘ সময় বাংলার মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব সামলেছেন জ্যোতি বসু। দীর্ঘদিন ধরে একটা দল পরিচালনা করেছেন। তাঁর জীবনের কাহিনিতে অনেক রসদ রয়েছে, বলে মনে করেন সলিল। এক সংবাদ মাধ্যমের প্রশ্নের জবাবে সলিল জানিয়েছেন,”অভিনেতা হিসেবে তাঁর বড় পছন্দের মিঠুন চক্রবর্তী এবং প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। এই দুই তারকার জন্য একাধিক জনপ্রিয় সংলাপ লিখেছেন তিনি। এবার সুযোগ পেলে বাংলার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর জীবনের কাহিনি নিয়ে চিত্রনাট্য লিখতে চান।”

Leave a Reply

Your email address will not be published.