নবদ্বীপ রাস মানেই চোখ ধাঁধানো সুউচ্চ প্রতিমা,একজনরে দেখে নিন এবারের নবদ্বীপরে রাসের কিছু উল্লেখযোগ্য প্রতিমা

নিজস্ব প্রতিবেদন: কথায় আছে রাস দেখতে গেলে যেতে হবে নবদ্বীপে । মূলত রাস উৎসবের কথা উঠলেই মানুষের মনে সর্বদাই নবদ্বীপের নামটাই সর্বপ্রথম আসে । বৈষ্ণব ও শাক্তের মিলন স্থল এখন নবদ্বীপ। মানুষের হিন্দু ধর্মের বিভিন্ন দেবদেবী পূজিত হয় নবদ্বীপের রাসে। নবদ্বীপের রাসেই দেখা যায় দেবদেবীর বিভিন্ন রূপ। ছোট-বড় মিলিয়ে কমপক্ষে আড়াইশো বেশি পুজো হয়ে থাকে নবদ্বীপের রাসে। কালির বিভিন্ন রূপ থেকে শুরু করে ভক্তের ভগবান, শ্রীকৃষ্ণের বিশ্বরূপ দর্শন, ভক্তের ভগবান, মহিষ মর্দিনী মাতা, গৌরাঙ্গিনী মাতা, গঙ্গা মাতা থেকে শুরু করে ভারতমাতা বিভিন্ন দেবদেবীর পূজিত হন নবদ্বীপের রাসে। প্রথা অনুযায়ী পূর্ণিমা তিথিতে সমস্ত দেব দেবীর পুজো হয়ে থাকে নবদ্বীপে।

একনজরে দেখে নিন নবদ্বীপের কিছু উল্লেখযোগ্য পুজোর প্রতিমা

বড় শ্যামা
মেজ শ্যামা
সেজ শ্যামা
ছোট শ্যামা
রয়্যাল সোসাইটির মহিষমর্দিনী মাতা
মুক্ত কেশী মাতা
রণকালী মাতা
চারিচারা বাজার ভদ্রাকালী মাতা
গঙ্গা মাতা
বামকালী মাতা
হরিসভা পাড়া ভদ্রাকালী মাতা
গঙ্গা যমুনা সরস্বতী, ষষ্টি তলা
শ্রী কৃষ্ণের কালিয় দমন
রয়্যাল ক্লাবের পার্থসারথি
ডুমুরেশ্বরী মাতা
চন্ডী মাতা
ভারত মাত
গৌরাঙ্গিনী মাতা
কাত্যায়নি মাতা
শবশিবা মাতা

আগামীকাল বিসর্জন বা আড়ং। করোনা আবহে বিভিন্ন পূজার মত নবদ্বীপের রাস সেও কাটছাঁট করা হয়েছে। করোনাকে মান্যতা দিতে আড়ং বা শোভা যাত্রায় জনসমাগমে বিধিনিষেধ আরোপ করেছে প্রশাসন। প্রতিবারের মত এবারে রাসের জৌলুস না থাকলেও নিয়ম ও রীতি মেনে সমস্ত পুজো হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.