সুস্থতার নাম করে কিশোরীকে একাধিকবার ধর্ষণ, মঙ্গলকোটে গ্রেফতার অভিযুক্ত ওঝা

নদীয়া নিউজ ২৪ ডিজিটাল: মঙ্গলকোটে ঝাড়ফুঁকের নাম করে ১৯ বছরের কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ এক ওঝার বিরুদ্ধে। যা নিয়ে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে ওই এলাকায়। নির্যাতিতার পরিবারের অভিযোগ, তরুণী দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ ছিলেন। সেই চিকিৎসার নামে ঝাড়ফুঁক করার সময় অভিযুক্ত এই কুকীর্তি করে। নির্যাতিতার অভিযোগের ভিত্তিতে কীর্তিমান ওঝাকে গ্রেপ্তার করেছে পূর্ব বর্ধমানের মঙ্গলকোট (Mangolkot) থানার পুলিশ। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে অভিযুক্তের নাম মারু শেখ। বয়স ৪৩ বছর।

স্থানীয় সূত্রে খবর, মারু শেখকে ওঝা হিসেবে এলাকায় চেনেন। অনেকেই তার কাছে ঝাড়ফুঁক করাতে যেতেন। নির্যাতিতার বাবা জানান, কয়েকমাস ধরে তার মেয়ে শারীরিক ও মানসিক সমস্যায় ভুগছে। মাঝেমধ্যেই বাড়ি থেকে বেরিয়ে যাচ্ছিল মেয়েটি। তাই তিনি ওঝার শরনাপন্ন হন। নির্যাতিতার বাবার অভিযোগ,”আমাকে মারু শেখ বলেছিলেন, মঙ্গলকোটের ঝিরেলা গ্রামে একটি শ্মশান রয়েছে। তার কাছাকাছি একটি পীরতলায় তার গুরু থাকে। সেখানে অমাবস্যার দিন মেয়েকে নিয়ে যেতে হবে। সেই অনুযায়ী আমি মেয়েকে নিয়ে শনিবার অমাবস্যার দিন ঝিরেলা গ্রামে যাই। আমাদের সঙ্গে মারু শেখও ছিল।”

নির্যাতিতা তরুণী জানায়,’শ্মশানে তারা আসার পর ধুমক্ষেত্রতলায় তাঁর বাবাকে বসিয়ে রাখা হয়। তারপর তাঁকে নিয়ে অজয়নদের ধারে চলে যায় মারু শেখ। বাবাকে মারু শেখ বলেছিল চিৎকার শুনলেও যেন তিনি নদীর ধারে না যান। তাহলে আমার ক্ষতি হবে। তারপর ওঝা আমাকে প্রাণে মারার হুমকি দেখিয়ে চরম ক্ষতি করে।” তরুণী আরও জানান, তাঁকে ধারালো ব্লেড দেখিয়ে রাতে পাঁচবার ধর্ষণ করে ওই ওঝা। পরদিন বাড়ি ফেরার পর প্রথমে তাঁর মায়ের কাছে পুরো ঘটনা জানান নির্যাতিতা। এরপর বাবা-মায়ের সঙ্গে রবিবার মঙ্গলকোটে এসে ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করেন। 

রবিবার রাতে গ্রেফতার করা হয় ওই ওঝাকে। তাকে সোমবার পেশ করা হয়  কাটোয়া আদালতে।
 এই ঘটনায় মঙ্গলকোটের ঝিলেরা গ্রামে চাঞ্চল্য ছড়ায়। কিশোরীর মা ওই ওঝার দৃষ্টান্তমূলক সাজা দাবি করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.