মুখ্যমন্ত্রীর অভিযোগকে নাকোচ করে রাজ্যপাল জানিয়েছেন হাওয়ালা চার্জশিট মামলায় তার নাম ছিল না,নাম ছিল যশবন্ত সিনহার

নদীয়া নিউজ ২৪ ডিজিটাল: জৈন হাওয়ালা চার্জশিট মামলায় রাজ্যপালের নাম জড়িত আছে বলে অভিযোগ করেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার বিকেলে নবান্নে সাংবাদিক বৈঠক থেকে রাজ্যপালের বিরুদ্ধে সরব হন তিনি। তারপর থেকেই তোলপাড় রাজ্য রাজনীতি। মুখ্যমন্ত্রীর অভিযোগের জবাবে সাংবাদিক বৈঠক ডাকেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। সাংবাদিক বৈঠকে তিনি বলেন,”হাওয়ালা জৈন চার্জশিটে তাঁর নাম নেই। মুখ্যমন্ত্রীর দাবি সত্য থেকে অনেক দূরে। হাওয়ালা জৈন মামলার কথা উল্লেখ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর মতো অভিজ্ঞ রাজনীতিক এই ধরনের উত্তেজনা তৈরি করবেন, এটা প্রত্যাশা করিনি। উনি ভুল তথ্য দিচ্ছেন। এমন কোনও নথি নেই। এটা সত্য থেকে অনেক দূর। সম্পূর্ণ মিথ্যা। বিভ্রান্তিকর তথ্য।’‌

রাজ্যপাল আরও বলেন,”মুখ্যমন্ত্রী আমার ছোট বোনের মতো। আমি তাকে সম্মান করি,শ্রদ্ধা করি। ছোট বোনের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়া যায় না।”এদিন রাজ্যপাল দাবি করেন,’হাওয়ালা চার্জশিট মামলায় তার নাম নয়,যশবন্ত সিনহার নাম ছিল। যিনি পরে মুক্ত হন। রাজভবন সূত্রে খবর, ইতিমধ্যেই ১৯৯৬ সালের সেই ফাইল খোঁজ করতে বলেছেন তিনি। আগামী ২ জুলাই রাজ্যপালের ভাষণ দিয়ে বিধানসভা অধিবেশন শুরু হওয়ার কথা। তার আগে এই ঘটনা রাজ্যপালকে বিড়ম্বনায় ফেলল বলে মনে করা হচ্ছে।

১৯৯৬ সালে কেন্দ্রে নরসিমা রাওয়ের সরকার থাকাকালীন হাওয়ালা কারবারের কথা প্রকাশ্যে আসে। দেশজুড়ে শোরগোল পড়ে যায়। দেশের তাবড় নেতা মন্ত্রীর নাম জড়ায় এই কেলেঙ্কারিতে। সেই ঘটনায় উঠে এসেছিল তৎকালীন বিজেপি দলের সাংসদ জগদীপ ধনখড়ের নামও। যদিও এখনও অবধি অভিযুক্তের তালিকা দীর্ঘ হলেও দোষী প্রমাণিত হননি কেউই।

প্রসঙ্গত সোমবার সকাল থেকেই নবান্ন-রাজভবন সংঘাত চরমে। নবান্ন থেকে রাজ্যপালকে তুলধনা করার পরই মুখ্যমন্ত্রীর উপর সরব হন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.