আগামী শুক্রবার ঘূর্ণিঝড় বিদ্ধস্ত এলাকাগুলি পরিদর্শনে যাবেন মুখ্যমন্ত্রী

নদীয়া নিউজ ২৪ ডিজিটাল: বুধবার সকাল থেকেই ঘূর্ণিঝড় ইয়াস এর দাপটে লন্ডভন্ড দুই মেদিনীপুর সহ দক্ষিণ ২৪ পরগনা । উত্তর ২৪ পরগনাতেও প্রভাব পড়েছে ভয়াবহ । শুক্রবার ঘূর্ণিঝড় বিদ্ধস্ত এলাকাগুলি আকাশপথে পরিদর্শনে যাবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ।হেলিকপ্টারে প্রথমে উত্তর চব্বিশ পরগণার হিঙ্গলগঞ্জ এলাকা পরিদর্শন করবেন মুখ্যমন্ত্রী ৷ সেখান থেকে তিনি যাবেন দক্ষিণ চব্বিশ পরগণার সাগরে ৷ সবশেষে তিনি যাবেন পূর্ব মেদিনীপুরের দিঘায় ৷ আকাশপথে ঘূর্ণিঝড় এবং তার জেরে জলস্ফীতি হয়ে প্লাবিত এলাকাগুলি পরিদর্শন করবেন মু্খ্যমন্ত্রী৷ সন্দেশখালি, সাগর এবং দিঘা- তিন জায়গাতেই প্রশাসনিক পর্যালোচনা বৈঠক করবেন তিনি ।

আজ দুপুরেই সাংবাদিক সম্মেলন করে মুখ্যমন্ত্রী জানান ,ঘূর্ণিঝড় বিদ্ধস্ত এলাকাগুলিতে পরিদর্শনে যাবেন তিনি । তবে দিন এখনও ঠিক হয়।তার কিছুক্ষন পর রাজ্যের মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, আগামী শুক্রবার রাজ্য প্রশাসনের একটি দলের সঙ্গে ইয়াসে বিধ্বস্ত বিভিন্ন এলাকায় আকাশপথে ঘুরে পরিস্থিতি সরেজমিনে দেখতে যাবেন মুখ্যমন্ত্রী। সেই দলে থাকবেন খোদ মুখ্যসচিবও।

আজ দুপুরে নবান্নে সাংবাদিক সম্মেলন থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে রাজ্যের উপকূলের জেলাগুলির বাসিন্দাদের সতর্ক করেছেন। তিনি বলেন, অনেক গ্রামে জল ঢুকে গেছে। রাত ৮.৪৫ পর্যন্ত জোয়ার চলবে। তারপর ক্রমশ নামবে জলস্তর। ১৩৪টি বাঁধ ভেঙে গেছে। ৫ ফুট অর্থাৎ মানুষ সমান উঁচু ঢেউ উঠেছে। 

এদিন মুখ্যমন্ত্রী আরও জানান, প্রাথমিক ভাবে মনে করা হচ্ছে ইয়াসের দাপটে রাজ্যে অন্তত ১ কোটি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন৷ ঝড়ের দাপটে কয়েক লক্ষ বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে৷ নোনা জল ঢুকে প্রচুর কৃষি জমি নষ্ট হওয়ার আশঙ্কাও করা হচ্ছে৷ মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, পূর্ব মেদিনীপুরের দিঘা, রামনগর, নন্দীগ্রাম এবং দুই চব্বিশ পরগণার হিঙ্গলগঞ্জ, পাথরপ্রতিমা এবং সন্দেশখালিতে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ যথেষ্ট বেশি৷ তবে ক্ষয়ক্ষতির মোট হিসেব পেতে অন্তত ৭২ ঘণ্টা সময় লাগবে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ সবমিলিয়ে ১৫ লক্ষ মানুষকে নিরাপদে সরিয়ে নেয় রাজ্য প্রশাসন৷ প্রাথমিক ভাবে ১০ কোটি টাকার ত্রাণ পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

Leave a Reply

Your email address will not be published.