Mahesh Rath Yatra 2021: করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে এবারও ঘুরবে না মাহেশের ঐতিহ্যবাহী রথের চাকা

নদীয়া নিউজ ২৪ ডিজিটাল: করোনা আবহে এবারও গড়াবে না হুগলির মাহেশের রথের চাকা। করোনার প্রথম ঢেউয়েও বন্ধ ছিল ,দ্বিতীয় ঢেউয়েও গড়াবে না চাকা। তবে নিয়ম মেনে বিশেষ পূজা হবে মন্দিরে। অতিমারী আবহে ৬২৪ বছরের ইতিহাসে প্রথমবারের জন্য বন্ধ হয়েছিল মাহেশের রথযাত্রা। এবার মাহেশের রথযাত্রার ৬২৫ বছর। এবার মাসির বাড়ি যাবেন না জগন্নাথদেব। তার বদলে নারায়ণ শিলাকে নিয়ে প্রথমে পদব্রজে রথের চারপাশে ঘোরানো হবে। এরপর নিয়ে যাওয়া হবে ১ কিলোমিটার দূরে মাসির বাড়িতে।

ভারতের দ্বিতীয় ও বাংলার সবচেয়ে পুরনো মাহেশের রথ। এমনটাই অনুমান ইতিহাসবিদদের। এখানের বিগ্রহ বহু প্রাচীন। মহাপ্রভু শ্রীচৈতন্যদেবও এখানে জগন্নাথ দর্শনে এসেছিসেন।

রথযাত্রা বন্ধের প্রসঙ্গে ,মন্দিরের সেবাইত পিয়াল অধিকারী জানান, বিশ্বের দ্বিতীয় প্রাচীনতম হিসেবে গণ্য বহু প্রাচীন মাহেশের রথযাত্রা দেখতে দুরদুরান্তের বহু মানুষের সমাগম হয়। তাই সামাজিক দূরত্ববিধি মানা অসম্ভব। তাই রথযাত্রা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে।

কথিত আছে, জগন্নাথদেবের ভক্ত শ্রীচৈতন্য একবার পুরী যাত্রার পথে মাহেশের মন্দির পরিদর্শনে এসেছিলেন। এখানে তিনি অচৈতন্য হয়ে পড়েন এবং গভীর সমাধিতে চলে যান। তার পর থেকে এই জায়গার নামকরণ হয় নব নীলাচল।

মার্টিন বার্ন কোম্পানির নির্মিত লোহার রথের বয়স ১৩৬ বছর। আগে ছিল কাঠের রথ।এই রথ ৫০ ফুট উচ্চতার, লোহার ১২টি চাকা। পুরীর জগন্নাথের ১২ বছর অন্তর হয় নবকলেবর। কিন্তু মাহেশে ৬২৫ বছর ধরে একই বিগ্রহে পুজো হয়ে আসছে। ভারতের দ্বিতীয় প্রাচীনতম রথযাত্রা মাহেশের রথযাত্রা। পর পর দু’বছর করোনার থাবা সেই ঐতিহ্যে ছেদ ফেলল।

Leave a Reply

Your email address will not be published.